সদ্য বিএনপিতে যোগ দেয়া আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি গোলাম মওলা রনি বলেছেন, পটুয়াখালী-৩ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পাওয়া শাহাজাদা সাজু সিইসির ভাগ্নে, ঠিক আছে। কিন্তু তিনি আমারও কম কিছু নন। তিনি আমারও অভিভাবক।
বুধবার (২৮ নভেম্বর) রাতে পটুয়াখালী জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন চৌধুরীর সঙ্গে তার বাসভবনে দেখা করার পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। এসময় গোলাম মওলা রনিকে আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করে নেন আলতাফ হোসেন চৌধুরী। জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে রনিকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন- জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ওয়াহিদ ছরোয়ার কালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মজিবুর রহমান টোটন, দফতর সম্পাদক গোলাম রহমান প্রমুখ।
গোলাম মওলা রনি বলেন, ২০০৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে, আমার নির্বাচন কৌশল ঠিক করে দিয়েছিলেন কেএম নূরুল হুদা। তিনি আমার বাসায় অন্তত ১৫ দিন বসবাস করে আমাকে নির্বাচনী কাজে পরামর্শ দিয়ে সহায়তা করেছিলেন। ক্যাম্পেইন করেছিলেন। তখন তিনি সিইসি ছিলেন না। এখন তিনি সিইসি। তবে আমার কাছে তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ক্যাপ্টেন নূরুল হুদা। তার ভেতরে সেই ক্যাপ্টেন নূরুল হুদা বসত করলে, আমার নির্বাচনী মাঠে কোনো নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশঙ্কা নেই।
তিনি বলেন, আমি বিশ্বাস করি, তিনি আগের নূরুল হুদাই আছেন। একাদশ সংসদ নির্বাচনে তিনি কোনোভাবেই বিতর্কিত হবেন না। এমন কি তার ভাগ্নের জন্যও না। কারণ, তার ভেতরে সেই ইতিবাচক বৈশিষ্ট্যগুলো এখনও বিরাজমান।
এ সময় সাংবাদিকরা জানতে চান, আপনার দল বিএনপি এবং জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা ড. কামাল হোসেন সিইসিকে নিয়ে নেতিবাচক বক্তব্য দিয়েছেন। সুষ্ঠু নির্বাচনে স্বার্থে তিনি তাকে সরিয়ে দেয়ারও দাবি করেছেন।
জবাবে আওয়ামী লীগের সাবেক এ এমপি বলেন, ড. কামাল হোসেন সারা দেশের ৩০০ আসন নিয়ে ভাবছেন। আমি শুধু একটি আসন নিয়ে ভাবছি। তিনি একটি বিশাল সমুদ্র, আমি তার বুকে ভেসে যাওয়া চিনা বাদামের খোসা। তার ভাবনার সঙ্গে আমার ভাবনার অমিল থাকতেই পারে।
pbd