স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল আল জাজিরা কে নিয়ে বর্তমানে দেশে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়েছে। এই গণমাধ্যমটির বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠে এসেছে। আর এই সকল অভিযোগ ওঠার পর সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ করা হয়। তবে এই গণমাধ্যমের এক সংবাদিক কে নিয়ে আরও বেশি আলোচনা শুরু হয়েছে। এই সংবাদিকের নাম ডেভিড বার্গম্যান। তিনি বাংলদেশের বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রতিবেদন করতেন। তার সম্পর্কে এবার বেশ কিছু তথ্য উঠে এসেছে।

যু//দ্ধা//প//রা//ধ, নিরাপদ সড়ক, কোটা আন্দোলন, রো//হি//ঙ্গা//র মতো ইস্যুতে খবর প্রচারের ক্ষেত্রেই আল-জাজিরার বস্তুনিষ্ঠটা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ। বাংলাদেশকে হেয় করে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে জামায়াতের এজেন্ডা বাস্তবায়নে কাজ করার অভিযোগ রয়েছে সংবাদমাধ্যমটির বিরুদ্ধে। আবারো বাংলাদেশের সুনাম ক্ষুণ্ণ করতে নতুন এজেন্ডা নিয়ে মাঠে নেমেছে আল-জাজিরা।

সামাজিক কিংবা রাজনৈতিক বাংলাদেশের যেকোনো আন্দোলন, ইস্যু ও সংকট নিয়ে কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরার প্রতিবেদন ছিল প্রশ্নবিদ্ধ। রাজনৈতিক রঙ লাগিয়ে দেশকে অ//স্থি//তি//শী//ল করা কিংবা সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করাই তাদের লক্ষ্য বলে মনে করেন অনেকে।

৬ বছর আগে যুদ্ধাপরাধ মামলায় জামায়াত নেতা মীর কাশেম আলীর ফাঁ//সি//র রায়ের পর ম//রি//য়া হয়ে ওঠে আল-জাজিরা। পরদিনই জামায়াতের নিয়োগ করা লবিস্ট টবি ক্যাডম্যান ও ডেভিড বার্গম্যানকে নিয়ে আয়োজন করা হয় এক অনুষ্ঠানের। হোয়াটস বিহাইন্ড বাংলাদেশ ওয়ার ক্রাইমস ট্রায়াল নামক ওই অনুষ্ঠানে যু//দ্ধা//প//রা//ধে//র বিচারকে প্রশ্নবিদ্ধ করে নানা বক্তব্য দেন টবি ও বার্গম্যান। যু//দ্ধা//প//রা//ধে//র বিচারে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা সমান সুযোগ পেলেও এক তরফা বিচার বলে প্রচার করেছে তারা।

এছাড়া বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে নেতিবাচকভাবে তুলে ধরতে একের পর এক বিতর্কিত প্রতিবেদন করেছে আল-জাজিরা। যার অধিকাংশই করেছেন বিতর্কিত সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যান।

শুধু যু//দ্ধা//প//রা//ধ ইস্যু নয়, নিরাপদ সড়ক আন্দোলন,কোটা সংস্কার আন্দোলন এমনকি রো//হি//ঙ্গা ইস্যুতেও নেতিবাচক খবর প্রচার করেছে গণমাধ্যমটি। নিরাপদ সড়কের আন্দোলনকে পূঁজি করে একের পর এক সরকারের নানা সমালোচনা করা হয় আল-জাজিরাতে। এক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয় সরকার বিরোধীদের।

এছাড়া বিভিন্নসময় আইনশৃঙ্খলাবাহিনী র‌্যাবকে জড়িয়ে বিরোধীদলীয় রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের গু///ম ও খু//নে//র বি/ভ্রান্তিকর প্রতিবেদনও প্রচার করে আসছে গণমাধ্যমটি। সূত্র:somoynews.tv

উল্লেখ্য, এর আগেও এই গণমাধ্যমটির বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তারা নানা রকম মিথ্যা সংবাদ প্রচার করেছে। এই সকল মিথ্যা সংবাদ প্রচার করার কারণে বিশ্বের বেশ কয়েটি দেশে এই গণমাধ্যমটিকে নিষিদ্ধ করা হয়। আর এবার দেশে এই গণমাধ্যমকে নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়েছে এবং একই সাথে এই সংবাদকে নিয়েও বেশ আলোচনা চলছে।