২০১৭ সালে ইরানি বিজ্ঞানী সিরুস আসগারিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রসাশন আটক করেন। পরবর্তিতে বিজ্ঞানী সিরুস আসগারিকে কারাবাসে দেন। দীর্ঘ ৩ বছর কারাবাসের পর মুক্ত হন বিজ্ঞানী সিরুস আসগারি। তাকে মুক্তি দেবার জন্য বিনিয়ম করেছে যুক্তরাষ্ট্র। কিছু শর্তে তাকে মুক্তি দিয়েছে। অশেষে ইরানী কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় ছাড়া পেলেন এই বিজ্ঞানী।

তথ্যপ্রযুক্তিসংক্রান্ত তথ্য ’চুরি ও তা ইরানে পাচার’ করার অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্রে গ্রেফতার হয়েছিলেন ইরানি বিজ্ঞানী সিরুস আসগারি।


তিন বছর যুক্তরাষ্ট্রের কারাগারে সাজা ভোগের পর তাকে মুক্তি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

মুক্তির পর বুধবার সকালে বিজ্ঞানী সিরুস আসগারি তেহরান বিমানবন্দরে অবতরণ করেন।


এর আগে মঙ্গলবার ইনস্টাগ্রামে সিরুস আসগারির মুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ।


ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম জানায়, ইরানের সঙ্গে বন্দিবিনিময় করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তেহরানে আটক একজন মার্কিন নাগরিকের মুক্তির বিনিময়ে আসগারিকে মুক্তি দেয় আমেরিকা। যদিও মার্কিন সরকার আসগারির আটকাদেশ আরও বাড়াবে বলে গত কয়েক মাস ধরে শোনা যাচ্ছিল।

অবশেষে ইরানের কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় ছাড়া পেলেন এই বিজ্ঞানী।

বিজ্ঞানী সিরুস আসগারি ইরানের শরিফ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রে তাকে আটক করা হয়।


সে সময় তার ওপর মার্কিন ফেডারেল গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআইয়ের অভিযোগ ছিল– পাঁচ বছর আগে যুক্তরাষ্ট্র নৌবাহিনীর বিষয়ে ওয়েস্টার্ন রিসার্ভ ইউনিভার্সিটিতে করা একটি গোপন গবেষণার তথ্য ইরানে পাচার করেছিলেন বিজ্ঞানী আসগারি।


প্রসঙ্গত, সিরুস আসগারি হলেন ইরানের অন্যতম সেরা বিজ্ঞানী। তথ্যপ্রযুক্তিসংক্রান্ত আইনে তথ্য চুরির অপরাধে যুক্তরাষ্ট্র তাকে অনির্দিষ্ট কালের জন্য কারাবাস দেন। পবর্তিতে ইরানের কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় বন্দি বিনিময় করেন তেহরানে আটককৃত মার্কিন এক নাগরিকের সাথা। মার্কিন এই নাগরিকের কারণে ৩ বছর কারাবাসের পর ছাড়া পেলেন বিজ্ঞানী সিরুস আসগারি।