মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে ইতিমধ্যে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন জয়ী হয়েছেন। তিনি নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর বিশ্ববাসী তাকে অভিনন্দন জানাচ্ছে। বর্তমানে তাকে নিয়ে সবখানে ব্যাপক আলোচনা চলছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই বিজয়ী প্রার্থীকে নিয়ে আরও বেশি আলোচনা চলছে। এদিকে, দেশ-বিদেশের অনেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন নিয়ে এখনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখালেখি করছেন। অনেকে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন এর প্রতিপক্ষ নেতাকে নিয়েও কথা বলছেন। আর এবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের নানা বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছেন ড. আসিফ নজরুল। পাঠকদের জন্য স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হল:

আমরা কেন খুশী?
মানুষ কি বাইডেনের জয়ে খুশী? না, খুশীটা সেজন্য না।
খুশীটা আসলে ট্রাম্পের পরাজয়ে। কমবেশী খারাপ দিক আমেরিকার অধিকাংশ প্রেসিডেন্টের ছিল। অনেক ক্ষেত্রে তা রাষ্ট্রব্যবস্থার কারণে, কখনো তা বিশ্ব ব্যবস্থায় তার প্রভাব ধরে রাখার তাগিদে। কারো পক্ষে সেখানে জাষ্টিন আর্ডেন হওয়া সহজ নয়, নেলসন ম্যান্ডেলা হওয়াও সম্ভব নয়।
কিন্তু তাই বলে তারা কেউ ট্রাম্পের মাপের ব’দ বা তার মতো প্রকাশ্য ব’দ হয়ে যাননি। নোং/রা অ’হ’মি’কা, ঢা’হা মি’থ্যে, বি’/ষা’/ক্ত ঘৃ’’ণা আর শোচনীয় বিভেদের প্রতিকৃতি হয়ে দাড়িয়েছিল ট্রাম্প। মানুষের ভেতর অবদমিত স্বার্থপরতা, সংকীর্ণতা আর পাশবিকতাকে উ/স্কে দিয়েছিল সে ক্ষমতার স্বার্থে।
পৃথিবীর বহু দেশে আছে এমন ট্রাম্প, আছে এরচেয়েও খারাপ ট্রাম্প। আছে নতুন নতুন ট্রাম্প-এর উত্থানের ভ/য়।
আমেরিকার ট্রাম্পের পতনের মধ্যে রয়েছে সেসব ট্রাম্পের পতনের স্বপ্ন। রয়েছে ঘৃ/ণা আর বিভেদের বিরুদ্ধে আমেরিকার মানুষের জয়ের প্রতি ভালোবাসা।
দেশে দেশে ঘৃ/ণা আর বিভেদজীবীরা এ স্বপ্ন আর ভালোবাসাকে বুঝতে পারবেন না। বা বুঝতে চাইবেন না।
আমরা পারবো। আমরা সাম্য, ঐক্য আর ভালোবাসার পক্ষে। আমরা ভদ্রতা আর নম্রতার পক্ষে।
আমরা তাই ট্রাম্পদের পরাজয়ে আনন্দিত হই।


উল্লেখ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন নিয়ে প্রথম থেকেই ড. আসিফ নজরুল নিজের মতামত দিয়ে আসছেন। আর তিনি প্রথম থেকেই বলে আসছেন এই নির্বাচনে ডেমোক্রেট প্রার্থী জো বাইডেন বিজয়ী হবেন। আর তার সেই কথাই অবশেষে সত্য হল। তবে তিনি বলেছিলেন দেশটির সম্পর্কে এক জরিপ দেখে। আর এই জরিপ করেছিল বিশ্বের এক জনপ্রিয় গণমাধ্যম।