সময়ের সাথে সাথে দেশে বাড়ছে শিক্ষার হার, তবে সেই তুলনায় বাড়ছে না চাকরির সংখ্যা। ফলে দিন দিন বেকারত্বের সংখ্যা যেমনি বাড়ছে, তেমনি বাড়ছে অপরাধ প্রবণতাও। আর এরই জের ধরে এবার বেকার সমস্য সমাধানে সংসদে বিশেষ এক প্রস্তাব রেখে রীতিমতো আলোচনায় এসেছেন বগুড়ার স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য রেজাউল করিম বাবলু। আজ শনিবার (০৪ সেপ্টেম্বর) সংসদে আইনমন্ত্রীর কাছে তিনি দাবি করেন এমন আইনের, যাতে দুজন সরকারি চাকরিজীবী বিয়ে করতে না পারে। তার মতে, এতে বেকার্ সমস্যার সমাধান হবে।
সংসদীয় আসন সীমানা নির্ধারণে নতুন আইন পাসের প্রক্রিয়ায় আলোচনায় দাঁড়িয়ে বাবলু বলেন, "চাকরিজীবী পুরুষ যাতে চাকরিজীবী নারীকে বিয়ে করতে না পারে কিংবা চাকরিজীবী নারী যাতে চাকরিজীবী পুরুষকে বিয়ে করতে না পারে, এরকম একটা আইন করা দরকার। এতে বেকার সমস্যার সমাধান হবে।"

"চাকরিজীবী দম্পতি একসাথে কাজ করতে বাইরে গেলে সন্তান গৃহকর্মীর হাতে /নি/র্যা/ত/ন হয়। এজন্য আ/ইন/টি দরকা/র। এতে শি/শু /নি/র্যা//ত/নও কমবে," বলেন তিনি।

পরে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, "এরকম প্রস্তাব নিয়ে আমি এখান থেকে দুই কদমও হাঁটতে পারবো না। আমি জনপ্রতিনিধি। বাক স্বাধীনতা আছে। তিনি (বাবলু) স্বাধীনভাবে যা ইচ্ছা তাই বলতে পারেন। আমি যা ইচ্ছা তাই করতে পারি না।"

২০১৮ সালের একাদশ সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৭ (গাবতলী-শাহজাহানপুর) আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন বাবলু।


গত বেশকিছু দিন আগেই ’অ’স্ত্র’ হাতে সংসদ সদস্য রেজাউল করিম বাবলুর একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পরপরই রীতিমতো শুরু হয় তীব্র সমালোচনার ঝড়। আর এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে এবার চাকরিজীবীদের মধ্যে বিয়ে বন্ধে আইন চেয়ে ফের আলোচনায় এসেছেন তিনি।