বাংলাদেশের তারকা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানকে নিয়ে ফের আলোচনা শুরু হয়েছে। এই তারকা ক্রিকেটার বর্তমানে দেশের বাইরে রয়েছেন। তিনি তার স্ত্রী সন্তানের সঙ্গে যুক্তরাস্ট্রে রয়েছেন। এদিকে, বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল বর্তমানে নিউজিল্যান্ড রয়েছে। ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান জাতীয় দলের সঙ্গে না থাকায় তাকে নিয়ে নানা রকম কথা হয়। তবে এরপর তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এসে খোলাসা কথা বলেন। এ সময় তিনি জানিয়ে দিলেন ক্রিকেট থেকে বিদায়ের সময়টা।

কি চমকে উঠলেন? শিরোনাম দেখে এমনটা হওয়া স্বাভাবিক। তবে যা ভাবছেন তা কিন্তু নয়। অবসর এখনি নেবেন না সাকিব আল হাসান। তবে অবসরের ভাবনা জানা গেলো তার মুখ থেকে।

রোববার (২১ মার্চ) দিনভর উত্তাপ ছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট নিয়ে সাকিবের কিছু সমালোচনামূলক মন্তব্য। খোদ বিসিবিও এ জন্য নড়েচড়ে বসছে।

এর মধ্যে আরেকদফা কথা বললেন সাকিব। কী বলতে চেয়েছেন? কেন বলেছেন? এসব উত্তর দেওয়ার ফাঁকে দেশের জনপ্রিয় এক সাংবাদিককে বলেই দিলেন, বড়জোর আর তিন/চার বছর খেলতে পারবেন। হতে পারে এক বছরও। তারপরই বিদায়।

দেশসেরা এই অলরাউন্ডারের ভাষ্য, ’আমার কথাই বলি। বয়স ৩৪ হয়ে গেছে। সবকিছু ঠিক থাকলে বড়জোর আর তিন/চার বছর খেলতে পারব। দুই বছরও হতে পারে। কপাল খারাপ থাকলে এক বছর। আর্থিক দিকটা ভাবা কি অন্যায়?’

প্লেয়াররা তো বোর্ডের ভয়ে এই জাতীয় কোনো কথাই বলেন না। আপনি বললেন কেন? সাকিবের উত্তর, ’বললাম তো, আমি যা বিশ্বাস করি, তা-ই বলি। কী প্রতিক্রিয়া হবে, এ নিয়ে ভাবি না। আমি চিন্তা করলে বড় চিন্তা করি। আচ্ছা আপনিই বলেন, আমি যা বলেছি, তাতে কি আমার নিজের কোনো লাভ আছে? নিজের লাভ তো গাধাও বোঝে। আমি ক্রিকেটের বৃহত্তর স্বার্থে কথাগুলো বলেছি। কারও যখন বলার সাহস নাই, আমিই না হয় বললাম। আমার ব্যক্তিগত লাভের জন্য তো বলি নাই। কেউ যদি এটা ভালোভাবে নিতে চায়, তা ক্রিকেটের জন্য ভালো হবে। আমরা যদি ভালো করতে চাই, বাংলাদেশের ক্রিকেটের উন্নতি চাই, তাহলে তো আমি কোনো সমস্যা দেখি না।’ সূত্র: পিপি

উল্লেখ্য, ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানের প্রথম পুত্র সন্তান হয়েছে আর এ সময় তিনি তার স্ত্রীর পাশে থাকার জন্য আগে থেকেই ছুটি নেওয়ার চিন্তা করেন। তবে নিউজিল্যান্ড সফরে তিনি না থাকায় তাকে নিয়ে বেশ আলোচনা শুরু হয়। তবে অবশেষে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এসে এই সকল বক্তব্য তুলে ধরেন।